Posted in অর্থনীতি-ব্যবসা

স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক ৫০০ কোটি টাকার বন্ড ছাড়বে

স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক লিমিটেড কুপন বিয়ারিং নন-কনভার্টিবল বন্ড ইস্যু করে ৫০০ কোটি টাকা সংগ্রহ করবে। সাত বছর মেয়াদি এই বন্ডটি হবে নন-কনভার্টিবল, ফুললি রিডিমেবল, আনসিকিউরড। তৃতীয় দফায় ইস্যু করতে যাওয়া সাব-অর্ডিনেটেড এ বন্ডের সুদহার হবে ফ্লোটিং রেটে, যা নিয়ন্ত্রক সংস্থা কর্তৃক নির্ধারণ হবে। স্টক এক্সচেঞ্জ সূত্রে জানা গেছে, পর্ষদ সভায় গৃহীত এসব সিদ্ধান্ত নিয়ন্ত্রক সংস্থার অনুমোদনক্রমে বাস্তবায়ন হবে।

জানা যায়, ব্যাংকটি প্রাইভেট প্লেসমেন্টের মাধ্যমে ইস্যু করতে যাওয়া এ বন্ডের অর্থে ‘টায়ার-টু’ মূলধন বাড়াবে। ২০১৭ সালের নিরীক্ষিত ও ২০১৮ সালের প্রথম প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত ও গত জুলাই পর্যন্ত হালনাগাদ প্রাসঙ্গিক উপাত্তের ভিত্তিতে ক্রেডিট রেটিং ইনফরমেশন অ্যান্ড সার্ভিসেস লিমিটেডের প্রত্যয়ন অনুসারে ব্যাংকটির ঋণমান দীর্ঘমেয়াদে ‘ডাবল এ’ ও স্বল্পমেয়াদে ‘এসটি-টু’।

সদ্যসমাপ্ত হিসাব বছরের প্রথম তিন প্রান্তিকে (জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর) এ ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১২ পয়সা, যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ৭০ পয়সা। ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৮ এর শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য দাঁড়িয়েছে ১৫ টাকা ৭৩ পয়সা।

২০১৭ সালের ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত হিসাব বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে ১০ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ দিয়েছে স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক। সে  বছর কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ১ টাকা ৫৬ পয়সা।

২০০৩ সালে শেয়ারবাজারে আসা স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের অনুমোদিত মূলধন ১ হাজার ৫০০ কোটি ও পরিশোধিত মূলধন ৮৭০ কোটি ৯৮ লাখ ৭০ হাজার টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ ৪৭০ কোটি ২ লাখ টাকা। মোট শেয়ারসংখ্যা ৮৭ কোটি ৯ লাখ ৮৭ হাজার ৬৯৬; যার মধ্যে উদ্যোক্তা-পরিচালক ৩৮ দশমিক ৯৩ শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী ২১ দশমিক ৭০ শতাংশ, বিদেশী ২ দশমিক ৪৩ ও সাধারণ বিনিয়োগকারীর হাতে রয়েছে ৩৬ দশমিক ৯৪ শতাংশ শেয়ার।